সৌদি প্রবাসীদের জন্য ১৪ মার্চ থেকে যুগান্তকারী পরিবর্তন আসছে

শ্রীঘ্রই বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসছে সৌদি আরবের শ্রম আইনে । সৌদি শ্রম আইনের এই পরিবর্তনগুলো তৈরী করা হয়েছে প্রাইভেট সেক্টরে চাকুরীজীবী এবং মালিকপক্ষের মধ্যকার সম্পর্ক উন্নয় করার জন্য। এই পরিবর্তনগুলো সৌদি শ্রম বাজারে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে আশা করছে মন্ত্রণালয়।

২০২০ সালের ১৪ নভেম্বর থেকে প্রচলিত শ্রম আইন পরিবর্তন করার কাজ শুরু করে মন্ত্রণালয়। এরফলে ৭০ বছরের পুরনো কাফালা প্রথা বাতিল করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। এছাড়াও পরিবর্তিত আইনে এক্সিট এবং রিএন্ট্রি, এবং ফাইনাল এক্সিট ভিসা ইস্যু করার জন্য মালিকপক্ষের অনুমতির দরকার হবে না।

মন্ত্রণালয় এর এবশের পোর্টাল এবং কিউইয়া অনলাইন প্লাটফর্ম এর মাধ্যমে এই সেবাগুলো প্রদান করবে সৌদি সরকার। প্রাইভেট সেক্টরে কর্মরত সকল প্রবাসী কর্মীরাই এই অ্যাপ এবং পোর্টাল এর মাধ্যমে এসকল সুবিধা লাভ করতে পারবেন। তবে, ৫ শ্রেণীর প্রবাসী কর্মচারীরা এই সুবিধার আওতায় পড়বেন না। তারা হচ্ছেনঃ প্রাইভেট ড্রাইভার, দ্বাররক্ষক, গৃহস্থালী কর্মী, রাখাল, এবং মালী অথবা কৃষক।

এক্সিট এবং রিএন্ট্রি ভিসার জন্য প্রস্তুত এই সার্ভিস এর মাধ্যমে প্রবাসী কর্মচারী শুধুমাত্র ডিজিটালি মালিকপক্ষকে অবগত করেই ভিসা ইস্যু করতে পারবেন। এছাড়াও, কাজের চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ার পর বা মেয়াদের মাঝেই চুক্তি বাতিল করা সাপেক্ষে পোর্টাল এর মাধ্যমে ফাইনাল এক্সিট ভিসার আবেদন করে সৌদি আরব ত্যাগ করতে পারবেন প্রবাসী কর্মচারী।

এছাড়াও, শ্রম আইনে আসন্ন আরেকটি পরিবর্তন হচ্ছে, চাকুরীর চুক্তির মেয়াদ পার হওয়া সাপেক্ষে কোন প্রবাসী কর্মচারী মালিকপক্ষের অনুমতি ছাড়াই নতুন চাকুরীতে যোগ দিতে পারবেন।

শ্রম আইন পরিবর্তন এর এই উদ্যেগের লক্ষ্য হচ্ছে সারাবিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে একটি আধুনিক এবং যুগোপযোগী শ্রম আইন তৈরী করা, যাতে করে দেশের শ্রমবাজারে কর্মরত সকল প্রবাসী শ্রমিক উপকৃত হন। সৌদি আরবের ভিশন ২০৩০ লক্ষ্য পূরণে এই পরিবর্তিত শ্রম আইন বিপুল ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

Leave a Reply